Thursday, April 18International Online Tv Portal
Shadow

ভৈরবে খাদ্যে বিষক্রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে একই পরিবারের ১০ জন হাসপাতালে

মিজানুর রহমান পাটুয়ারি | অনলাইন ডেস্ক | ভৈরব |

ভৈরবে খাদ্যে বিষক্রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে একই পরিবারের ১০ জন হাসপাতালে। সন্ধ্যায় কাঠাল ও রাতের খাবার খেয়ে একই পরিবারের ১০ জন অ জ্ঞান হয়ে পড়েন। শুক্রবার (২৩ জুন) সকালে ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তারা এখনো চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তারা হলো, লাহু হাজী, গুলবাহার, তাসলিমা, পুমি, জিতা, বর্ষা, বানী, তাসিন, মেঘলা, মিজান। এদের মধ্যে পরিবারে কর্তা ব্যক্তি লাহু হাজীর অবস্থার খারাপ হলে বাজিতপুর ভাগলপুর জহুরুল হক মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ভৈরব উপজেলার গজারিয়া ইউনিয়নের মানিকদী পূর্ব কান্দা এলাকায় লাহু হাজীর বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। খাদ্যের মধ্যে কেউ কোন রকম অচেতনকারী ঔষধ মেশানোর কারনেই এমনটি ঘটতে পারে বলে অসুস্থদের ধারনা।

স্থানীয়রা জানান, উপজেলার মানিকদী পূর্বকান্দা গ্রামের লাহু হাজীর বাড়িতে ২২ জুন বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় লাহু হাজীসহ পরিবারে সদস্যরা প্রথমে কাঁঠাল খায়। ঘন্টা খানেকপর রুই মাছ দিয়ে ভাত খায়। তার কিছুক্ষন পরেই একে একে সবারই বমিবমি ভাব মাথা ব্যথা এবং শরীর দুর্বল হয়ে একই স্থানে অচেতন হয়ে পড়ে যায়। রাতেই স্বজনরা এসে তাদের জাগাতে চেষ্টা করে। স্বজনরা তাদের ২৩ জনু সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কপ্লেকবসে ভর্তি করেন।

রোগীদের স্বজন খোদেজা বেগম বলেন, সন্ধ্যায় তারা একসাথে কাঠাঁল খেয়েছে। ঘন্টা খানেক পর রুই মাছ দিয়ে ভাত খেয়েছে। তার কিছুক্ষন পরেই একে একে সবারই বমিবমি ভাব, মাথা ব্যথা এবং শরীর দুর্বল হয়ে একই স্থানে অচেতন হয়ে পড়ে যায়। এদের মধ্যে ভাত খেয়ে বমি বমি ভাব নিয়ে লাহু হাজী নামাযে যান। সেখানে তিনি অ জ্ঞান হয়ে যায়। মুসুল্লীরা তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠান। পরে রাতেই তাদের বাড়িতে গেলে দেখি সবাই গভীর ঘুমে আছে। ডাকাডাকি করলেও কোন সাড়া শব্দ করছে না। তাদের লেবুর শরবতসহ টক জাতীয় খাবার খাওয়ানোর পরও কোন উন্নতি হয়নি। স্বজনদের খবর দিলে সবাই এসে তাদের সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কপ্লেক্সে নিয়ে যায়। বিকালে তাদের জ্ঞান ফিরলেও ঠিকমত কথা বলতে পারছে না।

কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. মেহজাবিন খানম জানান, খাদ্যে বি ষ ক্রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে তারা অসুস্থ হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। আ ক্রান্ত ৯ জন কে ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং ১ জন কে বাজিতপুর জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আ ক্রান্তদের মধ্যে ৬ জন নারী ২ জন শিশু ২ পুরুষ রয়েছে। তাদের পরিক্ষা নিরিক্ষার পর জানান যাবে কি কারণে এমনটা হয়েছে।

ভৈরব থানা অফিসার ইনচার্জ মাকছুদুল আলম জানন, খবর পেয়েছি। রোগীর স্বজনদের সাথে কথা হয়েছে। ঘটনার রহস্য উদ্ঘাটনের চেষ্টা চলছে।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *